৭ লাখ টাকায় বিদ্যালয়ের মাঠ ভাড়া, প্রধান শিক্ষক বলছেন ভিত্তিহীন

title
এক মাস আগে
গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার বান্ধাবাড়ী জেবিপি উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে রাখা হয়েছে ইটের খোয়াসহ নানা নির্মাণসামগ্রী। প্রতিদিন যন্ত্র দিয়ে এসব ইট ভাঙা হচ্ছে। এতে শিক্ষার্থীদের খেলাধুলা বন্ধের পাশাপাশি পড়াশোনায় বিঘ্ন ঘটছে। গতকাল মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, নাগরা-বান্ধাবাড়ী-রাশমীল সড়ক নির্মাণকাজের সামগ্রী রাখা বিদ্যালয়ের মাঠে। বিজ্ঞাপন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য মো. কামাল হোসেন জানান, মাঠ ঠিকাদারের কাছে ভাড়া দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। বিনিময়ে ঠিকাদার সাত লাখ টাকা দিয়েছেন। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বর্তমানে জেবিপি উচ্চ বিদ্যালয় ও বান্ধাবাড়ী হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলা রয়েছে। এই দুটি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অন্য সময় মাঠটিতে খেলাধুলা করত। নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী বলে, বিদ্যালয় মাঠে ইটের খোয়া রাখার কারণে তারা খেলাধুলা করতে পারছে না। এ ছাড়া বিদ্যালয় চলার সময়ে ইট ভাঙায় তাদের ক্লাস করতে সমস্যা হচ্ছে। এ বিষয়ে বান্ধাবাড়ী জেবিপি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শেখ আব্দুর রশিদ জানান, যে মাঠ ভাড়া দেওয়া হয়েছে, সেটি উচ্চ বিদ্যালয়ের হলেও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ব্যবহার করে। তিনি বলেন, মাঠটিতে কিছুদিনের জন্য সড়ক নির্মাণকাজের সামগ্রী রাখার জন্য ঠিকাদারের কাছে ৫০ হাজার টাকা ও একটি সিসিটিভি মনিটরের বিনিময়ে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এখানে সাত লাখ টাকার বিষয়টি ভিত্তিহীন। ঠিকাদার মো. জসিমউদ্দীন বলেন, আমি তিন মাসের জন্য মাঠ ভাড়া নিয়েছি। বিনিময়ে বিদ্যালয়ে ৫০ হাজার টাকা ও একটি সিসিটিভি মনিটর দিতে হবে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান বলেন, বিদ্যালয়ের মাঠ ভাড়া দেওয়ার কোনো বিধান নেই। বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত করে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।