‘২৪ জানুয়ারি গণহত্যা ছিল পূর্বপরিকল্পিত’

title
৪ মাস আগে
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, সামরিক স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন যখন তুঙ্গে ১৯৮৮ সালের ২৪ জানুয়ারি তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে সামরিক স্বৈর সরকারের প্ররোচনায় পুলিশ বাহিনী নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করে আওয়ামী লীগের ২৪ জন নেতাকর্মীকে হত্যা করে। এই গণহত্যা ছিল পূর্বপরিকল্পিত। আজ সোমবার সকালে নগরের পুরাতন বাংলাদেশ ব্যাংক সংলগ্ন আদালত ভবনের পাদদেশে ১৯৮৮ সালের ২৪শে জানুয়ারি গণহত্যার শহীদদের স্মরণ বেদীতে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেছেন। নাছির বলেন, ৩৪ বছর পর বিলম্বিত বিচারে দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত হওয়ায় শহীদদের আত্মা ও তাঁদের পরিবারদের মাঝে শান্তি ও স্বস্তি নেমে এসেছে। বিজ্ঞাপন এই বিচার প্রক্রিয়া দ্রুত হতে পারত। কিন্তু সামরিক স্বৈর সরকার এবং বেগম জিয়া রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকার সময় উদ্দেশ্যে প্রণোদিতভাবে চট্টগ্রাম গণহত্যার বিচার প্রক্রিয়াকে বিলম্বিত করতে চেয়েছিল। আমরা জানি সামরিক স্বৈরাচার ও বিএনপি জামাত জোট সরকারের আমলে এদেশে কলঙ্কিত গণত্যাগুলো সংগঠিত হয়। তাদের প্ররোচনায় এদেশে জঙ্গিবাদ ও মৌলবাদী শক্তির উত্থান ঘটে। সভায় চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, চট্টগ্রাম গণহত্যা ঔপনিবেশিক আমলে জ্বালিয়ানওয়ালা বাগ গণহত্যার কথা মনে করিয়ে দেয়। ওই গণহত্যার ঘটনায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ব্রিটিশ সরকারের দেওয়া নাইট উপাধি প্রত্যাখান করেছিলেন। চট্টগ্রাম গণহত্যার পর ২৪টি মূল্যাবান প্রাণহানি হলেও নানাভাবে বিচার প্রক্রিয়াকে বিলম্বিত করা হয়েছে। এটা আমাদের কাছে লজ্জা ও ঘৃণার বিষয়। আজ ৩৪ বছর চট্টগ্রাম গণহত্যার বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে এবং দোষীদের ফাঁসির রায় রয়েছে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে যারা হত্যা, নাশকতা, সন্ত্রাস ও মৌলবাদ এবং জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় ও ইন্ধন দেয় তারা জাতির দুশমন। এরা আমাদের আশে পাশেই আছে। তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তার রূপকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করতে হবে। সংগঠনের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র এম. রেজাউল করিম চৌধুরী, উপদেষ্টা সফর আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুক, দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ হাসান মাহমুদ শমসের, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক চন্দন ধর প্রমুখ। এর আগে শহীদের স্মরণে ১ মিনিট নিরবতা পালন ও সভা শেষে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের নেতবৃন্দ ২৪ জানুয়ারির শহীদদের স্মরণ বেদীতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন।