‘জগন্নাথকে আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরই একমাত্র লক্ষ্য’

title
এক মাস আগে
এসো জ্ঞানের মশাল বয়ে নিয়ে যাই আগামীর পানে স্লোগান নিয়ে স্বল্প পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. ইমদাদুল হক জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তালন এবং জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য এই দিবসের উদ্বোধন করেন। বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল সেন্টারে কোভিড-১৯ টিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধন করেন উপাচার্য ইমদাদুল হক। এরপর ভার্চুয়াল আলোচনাসভার মধ্য দিয়ে এ বছরের বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপনের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়। ভার্চুয়াল সভায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইমদাদুল হক বলন, কেরাণীঞ্জে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব অর্থায়নে ক্রয়কৃত জমিতে খেলার মাঠ এবং কিছু আবাসন ব্যবস্থার সমাধান করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের মান বৃদ্ধি তথা গবেষণা খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন গবেষণা সহায়তা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি করা হয়েছে। এছাড়া খুব শীঘ্রই তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ইনোভেশন হাবের জন্য চুক্তি করা হবে। সকল সুযোগ-সুবিধা ও সহযোগিতা বৃদ্ধির একমাত্র লক্ষ্যই হচ্ছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালকে আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করা। তিনি আরো বলেন, এই দিন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে টিকা কার্যক্রমের উদ্বোধন করতে পেরে আমরা আনন্দিত এবং অল্প কয়েক দিনের মধ্যেই ক্যাম্পাসে জাতীয় পরিচয়পত্র কার্যক্রম উদ্বোধন করা হবে। এতে করে যেসকল শিক্ষার্থী জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য তথ্য এখনও প্রদান করেনি, তারা ক্যাম্পাস বসেই জাতীয় পরিচয়পত্রের প্রয়োজনীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারবে। আলাচনাসভায় রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো. ওহিদুজ্জামানের সঞ্চালনায় ট্রেজারার অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ, বিভিন অনুষদর ডিন ও সিন্ডিকেট সদস্য, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. নূরে আলম আব্দুল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. শামীমা বেগম ও প্রক্টর মোস্তফা কামাল বক্তব্য প্রদান করেন। উল্লেখ্য, ২০ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হলেও এদিন বিশ্ববিদ্যালয় ছুটি থাকায় পরদিন ২১ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করা হয়।