জ্ঞানবাপীতে মুসলিমদের প্রবেশ বন্ধের দাবিতে মামলা

title
এক মাস আগে
আবেদনে বলা হয়েছে, পুরো জমিটাই কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরের। সেখানে তাই মসজিদ থাকতে পারে না। পুরো জমি মন্দির কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেয়া হোক। জ্ঞানবাপী নিয়ে মুসলিম পক্ষের আইনজীবী অভয় যাদব ডিডাব্লিউকে জানিয়েছেন, ''জ্ঞানবাপী মসজিদের জমি ওয়াকফ বোর্ডের সম্পত্তি।'' গত ১৭ মে সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল যে, জ্ঞানবাপী মসজিদে নামাজ পড়া যাবে। বিচারপতি চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ জেলাশাসককেও নির্দেশ দিয়েছে, মুসলিমরা যাতে নামাজ পড়তে পারেন, তার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নিতে। ওজুখানা ও তহখানা সিল করে দেয়ায় ওজুর জন্য জলের ব্যবস্থা করার জন্যও জেলাশাসককে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতিরা। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জ্ঞানবাপী সংক্রান্ত আগেকার আবেদনের বিচার এখন জেলা বিচারকের আদালতে হচ্ছে। মঙ্গলবার সেখানে শুনানি হয়েছে। ২৬ মে আবার হবে। তারপর রায় দিতে পারেন বিচারক। তার মধ্যেই আরেকটি আবেদন জানানো হলো। জ্ঞানবাপীতে নামাজের ফাইল ছবি। স্কুলের নির্দেশ বেঙ্গালুরুর বেসরকারি নিউ হরাইজন স্কুল কর্তৃপক্ষ প্রাক্তন পড়ুয়াদের নির্দেশ দিয়েছে, তারা যেন গুগল ম্যাপে জ্ঞানবাপীকে মসজিদ না বলে মন্দির বলে উল্লেখ করে। যতক্ষণ পর্যন্ত গুগল মসজিদ বদলে মন্দির না লিখছে, ততদিন পর্যন্ত এই কাজ করে যেতে হবে বলে তারা নির্দেশ দিয়েছে। কীভাবে গুগল ম্যাপে পরিবর্তন করতে হবে, তাও জানিয়ে দেয়া হয়েছে। সাবেক পড়ুয়াদের ইমেল করে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। স্কুল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, স্ক্রিনিং না করেই ইমেল পাঠানো হয়েছিল। এর আগে এই স্কুল সমস্ত ছাত্রদের 'কাশ্মীর ফাইলস' সিনেমাটি দেখতে বাধ্য করেছিল। জিএইচ/এসজি (পিটিআই, এএনআই)