বন্যা সামলানোর প্রস্তুতি সরকারের রয়েছে জানান প্রধানমন্ত্রী

title
৬ দিন আগে
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জনগণের ভোট কেড়ে নিয়ে ক্ষমতায় থাকতে চান না তিনি৷তিনি আরও বলেন, মিলিটারি ডিকটেটররা যা করেছে তার বিরুদ্ধে আমিই সংগ্রাম করেছি,আমিই আন্দোলন করেছি৷ জেল-জুলুম, গ্রেনেড-বোমা-গুলির সম্মুখীন আমিই হয়েছি, কিন্তু গণতন্ত্রটা করতে পেরেছি বলেই, ধারাবাহিকতা আছে বলেই আজকের এই উন্নতিটা৷ আগামী শনিবার পদ্মা নদীর ওপর নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত সেতুর উদ্বোধন করা হবে৷ সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়ার পর শত প্রতিকূলতার মধ্যেও তা বাস্তবায়নের কঠিন যাত্রায় সঙ্গে থাকায় দেশের মানুষের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷তিনি বলেন, ‘‘মানুষের কাছ থেকে যে অভূতপূর্ব সাড়াটা আমি পেয়েছিলাম, সেটাই কিন্তু আমার সাহস আর শক্তি৷… মানুষ আমার পাশে দাঁড়িয়েছিল৷ তাদেরই সাহসে এই পদ্মা সেতু আজ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে৷’’ দেশে বন্যার ঝুঁকি সেপ্টেম্বর পর্যন্ত থাকে, সে কথা তুলে ধরে সরকারের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি থাকার কথাও জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ তিনি বলেন, ‘‘বন্যা শুরু হয়েছে, সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বন্যার ঝুঁকিটা আমাদের থাকে, পানিটা নেমে আসবে দক্ষিণ অঞ্চলে৷ সেজন্য আগাম প্রস্তুতি আমাদের আছে৷’’ সিলেট অঞ্চলে এবারের ভয়াবহ বন্যারকথা তুলে ধরে সেখানে ত্রাণ ও উদ্ধার তৎপরতার বিস্তারিত বিবরণ দিয়ে তিনি বলেন, ‘‘আমি আগেই নির্দেশ দিয়েছিলাম, পানি যাতে দ্রুত নেমে যেতে পারে, প্রয়োজনে রাস্তা যেন কেটে দেয়৷ এটাও আমাদর একটা শিক্ষা, কোন জায়গা থেকে পানি নিষ্কাশন হচ্ছে, কারণ আমাদের এখানে তো বন্যা আসবেই৷ সেটা চিহ্নিত করে রাখতে বলেছি, সেখানে ব্রিজ কালভার্ট এমনভাবে করে দেব, যাতে পানি জমা থাকতে না পারে৷’’ ওই অঞ্চলে আরও বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র করার পাশাপাশি বন্যার কথা মাথায় রেখে অবকাঠামো করার কথাও বলেন সরকার প্রধান৷ তিনি বলেন, ‘‘অনেকদিন এরকম বন্যা হয়নি, আবার বন্যা আসলো৷ সেইভাবে অবকাঠামো তৈরি করতে হবে৷’’ বন্যার পর কৃষক যেন কৃষিকাজ করতে পারে, সেজন্য বীজ, সারের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি৷ বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করছে জানান৷ এছাড়াওযারা বন্যার মধ্যে কষ্ট করে কাজ করেছেন তাদের সবাইকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী৷ এনএস/কেএম (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, ডেইলি স্টার) পানিবন্দি সিলেট শহর বিদ্যুৎ নেই সিলেট শহরের কালীঘাট এলাকার একাধিক ব্যবসায়ী এবং স্থানীয় বাসিন্দা জানান, গত চার-পাঁচ দিন যাবত বন্যার কারণে তাদের এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। এতে তাদের সীমাহীন ভোগান্তি হচ্ছে। বিদ্যুৎ সরবরাহ কবে নাগাদ আবার শুরু হবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না সংশ্লিষ্টদের কেউ। পানিবন্দি সিলেট শহর বসতবাড়ি এবং ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে পানি শহরের কালীঘাট, উপশহরসহ একাধিক স্থানে ঘুরে দেখা যায়, সেখানে আবাসিক এলাকা এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হাঁটু সমান বা কোথাও তার চেয়েও বেশি পানি। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো গত রোববার পর্যন্ত বন্ধ ছিল, সোমবার থেকে পানি কিছুটা নেমে যাওয়ায় ব্যবসায়ীরা দোকানপাট খুলতে শুরু করেছেন৷ পানিবন্দি সিলেট শহর নদী আর সমতল মিশে একাকার সিলেটের সুরমা নদীর পাশেই লালদিঘীরপাড় বাজার এলাকা। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, নদীর সাথে সমতলের কোনো পার্থক্য নেই। দুই জায়গারই পানির উচ্চতা এক। নদীর কাছাকাছি গিয়ে দেখা যায়, সেখানে লাল কাপড় দিয়ে নদীর সীমানা চিহ্নিত করা হয়েছে যেন কোনো ধরনের দুর্ঘটনা না ঘটে। পানিবন্দি সিলেট শহর গবাদি পশুও সংকটে সিলেট নগরীর ছড়ারপাড় এলাকার বাসিন্দা পেশায় ঠিকাদার মো. তপু গনি জানান, তিনি শখের বশে বসতবাড়িতে ছাগল ও ভেড়া পালেন ১০-১২টি। এবারের বন্যায় দুই ঘন্টার মধ্যে পানি কোমর পর্যন্ত হয়ে যাওয়ায় কিছু টের পাওয়ার আগেই তার চারটা ভেড়া মারা যায়। এতে তার প্রায় দুই লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি তার। বাকি ছাগলগুলো বাসার দোতলায় নির্মানাধীন একটি ঘরে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। পানিবন্দি সিলেট শহর প্রতিবেশীদের আশ্রয় দিলেন বাড়ির মালিক সিলেট শহরের কালীঘাট সংলগ্ন কামালগড়ের তিনতলা বাড়ির মালিক নজরুল ইসলাম। প্রতিবেীদের ঘরে বন্যার পানি প্রবেশ করায় তিনি তার বাড়িটি প্রতিবেশীদের জন্য ছেড়ে দিয়ে সপরিবারে ঢাকায় মেয়ের বাসায় চলে গেছেন। তার তিনতলা বাড়িতে এখন ছয়টি পরিবার বাস করছে। পানিবন্দি সিলেট শহর ঘরছাড়া এক মাস স্থানীয় বাসাবাড়িতে রান্নার কাজ করেন মাছিতপুর এলাকার বাসিন্দা জয়ফুন্নেসা বেগম। তিনি জানান, গত মাসে যখন বন্যা হলো, তখন থেকেই তার ঘরের ছাদ সমান পানি উঠেছে। প্রায় এক মাস যাবত তার ঘরে পানি। আশ্রয় নিয়েছেন পার্শ্ববর্তী এক চারতলা বাসায়। পানিবন্দি সিলেট শহর মৃতদেহ বহনে সমস্যা সিলেট শহরের কামালগড়ের বাসিন্দা ৮০ বছরের হায়াত আলী বার্ধক্যজনিত কারণে মারা গেছেন সোমবার। মরদেহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে কুষ্টিয়ার গ্রামের বাড়িতে । শহরে বুক সমান পানি থাকায় মৃতের বাসা পর্যন্ত অ্যাম্বুলেন্স যেতে না পারেনি৷ তাই প্রধান সড়ক পর্যন্ত কাঁধে করে লাশ নিয়ে আসতে হয়। পানিবন্দি সিলেট শহর সরকারি প্রতিষ্ঠান যেভাবে চলছে সিলেট শহরের তালতলা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল) অফিসে হাঁটু সমান পানি। দুদিন আগে সেখানে কোমর সমান পানি থাকলেও গতকাল থেকে পানি নামছে। এদিকে চার দিন ধরে বিদ্যুৎ না থাকায় কখনো জেনারেটর আবার কখনো প্রায় অন্ধকারেই সাধারণ মানুষকে সেবা দিতে হচ্ছে বলে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা। পানিবন্দি সিলেট শহর খাবার পানির সংকট সিলেটের তালতলা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, মন্নুজান বেগম নামের একজন কলস নিয়ে পানি আনতে যাচ্ছেন স্থানীয় সরকারি পানির পাম্পে। তিনি জানান, যে বস্তিতে থাকেন, সেখানকার টিউবওয়েল বন্যার পানিতে ডুবে গেছে। তাই প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে এসে তাকে খাবার পানি সংগ্রহ করতে হচ্ছে। পানিবন্দি সিলেট শহর পানিতে বিকল যানবাহন সিলেটের তালতলা, কালীঘাটসহ পানিতে ডুবে থাকা বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, যানবাহনে পানি ঢুকে যাওয়ায় সেগুলো অকেজো হয়ে পড়ছে। অনেকে পানির গভীরতা অনুমান করতে না পেরে বেশি পানিতে গিয়ে বিকল বাহন নিয়ে বিপদে পড়ছেন। পানিবন্দি সিলেট শহর শহর পানিতে থৈ থৈ উপশহর এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে রাস্তায় হাঁটু সমান পানি। দুইদিন পানির উচ্চতা কোমর সমান ছিল বলে জানান স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। এইসব রাস্তায় এত পানি গত ২২ বছরে কখনো দেখেননি বলে জানান আড়ত ব্যবসায়ী আলী আহাম্মদ। পানিবন্দি সিলেট শহর পোষা প্রাণী নিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ে আব্দুল জব্বার পেশায় নিরাপত্তাকর্মী, থাকেন উপশহর এলাকায়। এবারের বন্যায় তার বসতবাড়িতে কোমর সমান পানি হওয়ায় তিনি একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের দুইতলায় আশ্রয় নিয়েছেন। নীচে যেহেতু সব জায়গায় পানি, তাই সাথে নিয়ে এসেছেন তার পোষা কুকুরটিকেও। পানিবন্দি সিলেট শহর ভেলা বানিয়ে চলাচল সিলেটের তালতলা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে খাল এবং রাস্তার পানির উচ্চতা এক। স্থানীয় শিশু -কিশোরেরা কলাগাছের ভেলা এবং ককশিট দিয়ে তৈরি নৌকা দিয়ে খেলার ছলে রাস্তা পার হচ্ছে। তবে এতে দুই-তিনজনের বেশি চড়া যাচ্ছে না বলে জানায় আশরাফ ও মেহেদি নামের এই দুই শিশু। পানিবন্দি সিলেট শহর সড়কে মাছের আশায় জাল ফেলা শহরের তালতলা এলাকায় খালের পানি স্বাভাবিক উচ্চতার চেয়ে প্রায় পাঁচ-ছয় ফুট উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে রাস্তায়ও পানি হাঁটু সমান। সেখানে জাল ফেলে মাছ ধরতে এসেছেন আবু জাফর নামের এক জেলে। তিনি জানান, বড় মাছ না পাওয়া গেলেও যদি সামান্য কিছু ছোট মাছ পাওয়া যায় সে আশায় গতকাল এবং আজ জাল ফেলেছন তিনি। তবে এখনো কোনো মাছ পাননি। পানিবন্দি সিলেট শহর পানি কমছে গত দুই দিন ধরে সিলেট শহরে বৃষ্টিপাত কিছুটা কম হওয়ায় বিভিন্ন এলাকার পানি ধীরে ধীরে কমছে৷ হুট করে যেভাবে পানি বেড়ে গিয়েছিল, সেভাবে কমছে না। কারণ জানতে চাইলে একাধিক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, পানি নামার মতো জলাশয় নেই, যা টুকটাক ছিল, মানুষ ভরাট করে ফেলেছে। এই বন্যার পানি নামতে কমপক্ষে আরো পাঁচ-ছয় দিন লাগবে বলেও ধারণা করছেন তারা। লেখক: মর্তূজা রাশেদ (সিলেট থেকে)