তাইওয়ান ঘিরে চীনের সামরিক ড্রিল

title
১২ দিন আগে
বৃহস্পতিবার একেবারে গোলাবারুদ-সহ চীনের সামরিক কুচকাওয়াজ শুরু হলো। তাইওয়ানকে পুরোপুরি ঘিরে ধরে এই কুচকাওয়াজ হচ্ছে। তাইওয়ানের দাবি, চীন এই কুচকাওয়াজ শুরু করলে ১৮টি আন্তর্জাতিক রুট বন্ধ করে দিতে হবে। মার্কিন হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফর নিয়ে তীব্র আপত্তি জানিয়েছিল চীন। তা সত্ত্বেও পেলোসি তাইওয়ান গেছেন। চীন এখন তাদের সামরিক শক্তির কিছুটা আভাস অ্যামেরিকাকে দেখিয়ে প্রতিবাদ জানাতে চাইছে। সামরিক ড্রিল নিয়ে যা জানা গেছে চীনের সরকারি মিডিয়া জানিয়েছে, এই কুচকাওয়াজ হলো মূলত প্রশিক্ষণ কর্মসূচি। তবে সেই সময় গোলাবারুদ ছোড়া হবে। স্থানীয় সময় বেলা বারোটাথেকে তা শুরুহয়েছে এবং রোববার পর্যন্ত চলবে। কিছু জায়গায় তাইওয়ানের সমুদ্রতটের কুড়ি কিলোমিটার দূরে এই ড্রিল হচ্ছে। চীন ও তাইওয়ান, কার কত সামরিক শক্তি জনসংখ্যার নিরিখে চীনের জনসংখ্যা ১৩৯ কোটি ৮০ লাখ। তাইওয়ানের জনসংখ্যা মাত্র দুই কোটি ৩৬ লাখ। জনসংখ্যার বিচারে চীন ও তাইওয়ানের কোনো তুলনাই চলে না। উপরের ছবিটি চীনের একটি স্টেশনের। চীন ও তাইওয়ান, কার কত সামরিক শক্তি প্রতিরক্ষা বাজেট গ্লোবাল ফায়ারপাওয়ার, ২০২২-এর হিসাব অনুযায়ী, সামরিক খাতে চীন বিপুল খরচ করে। খুব কম দেশই এতটা খরচ করে বা করতে পারে। চীনের প্রতিরক্ষা বাজেট হলো ২৩ হাজার কোটি ডলার। সেই তুলনায় তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা বাজেট এক হাজার ৬৮০ কোটি ডলার। উপরের ছবিটি তাইওয়ানের সেনার। চীন ও তাইওয়ান, কার কত সামরিক শক্তি সেনার সংখ্যা চীনের সক্রিয় সেনার সংখ্যা ২০ লাখ। আর তাইওয়ানের এক লাখ ৭০ হাজার মাত্র। ফলে সেনাসংখ্যার হিসাবেও চীন ও তাইওয়ানের কোনো তুলনা চলে না। উপরের ছবিটি চীনের সেনার প্যারেডের। চীন ও তাইওয়ান, কার কত সামরিক শক্তি কার কাছে কত ট্যাঙ্ক চীনের কাছে আছে পাঁচ হাজার ২৫০টি ট্যাঙ্ক। আর তাইওয়ানের কাছে এক হাজার ১১০টি। ফলে তুলনা অসম। উপরে চীনের ট্যাঙ্কের ছবি। চীন ও তাইওয়ান, কার কত সামরিক শক্তি যুদ্ধবিমানের সংখ্যা চীনের কাছে তিন হাজার ২৮৫টি যুদ্ধবিমান আছে। তাইওয়ানের কাছে আছে মাত্র ৭৪১টি। তবে তাইওয়ানের কাছে এফ ১৬ যুদ্ধবিমান রয়েছে।ছবিতে তাইওয়ানের এফ ১৬ যুদ্ধবিমান। চীন ও তাইওয়ান, কার কত সামরিক শক্তি নৌবহরের সংখ্যা চীনের নৌবহর ৭৭৭টি। তাইওয়ানের মাত্র ১৭৭টি। উপরে চীনের যুদ্ধজাহাজের ছবি। চীন ও তাইওয়ান, কার কত সামরিক শক্তি প্রশান্ত মহাসাগরে কে কত খরচ করে ট্রেন্ডস ইন ওয়ার্ল্ড মিলিটারি এক্সপেন্ডিচার ২০২১ অনুযায়ী, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি খরচ করে অ্যামেরিকা, ৮০ হাজার কোটি ডলার। দ্বিতীয় স্থানে আছে চীন। তারা ২৯ হাজার কোটি ডলার খরচ করে। তাইওয়ান সেখানে খরচ করে এক হাজার তিনশ কোটি ডলার। তবে তারা সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ডের থেকে বেশি অর্থ খরচ করে। উপরের ছবিতে প্রশান্ত মহাসাগরে মার্কিন যুদ্ধজাহাজ। চীন ও তাইওয়ান, কার কত সামরিক শক্তি কাকে বাছবে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলি যদি এরকম পরিস্থিতি আসে, বাধ্য হয়ে কাউকে সমর্থন করতে হচ্ছে, তাহলে কাকে সমর্থন করবে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলি? দ্য স্টেট অফ সাউথইস্ট এশিয়া ২০২২ জানাচ্ছে, লাও, কম্বোডিয়া ও ব্রুনেই নিশ্চিতভাবে চীনের দিকে যাবে। কিন্তু ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, ফিলিপাইন্স, মিয়ানমারের অ্যামেরিকার দিকে থাকার সম্ভাবনা বেশি। সরকারি ট্যাবলয়েড গ্লোবাল টাইমস জানিয়েছে, পেলোসির তাইওয়ান সফর ঘিরে যা হয়েছে, তাতে অ্যামেরিকা ছিল উসকানিদাতা। তাইপেই সতর্ক তাইওয়ান বলেছে, চীনের এই সামরিক ড্রিল আঞ্চলিক সুরক্ষার ক্ষেত্রে বিপদের কারণ। তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেছেন, চীন অযৌক্তিক কাজ করছে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তাইপেই সতর্ক। সব জাহাজ ও নৌকাকে বলে দেয়া হয়েছে, ড্রিল চলার সময় তারা যেন সমুদ্রে না যায়। বুধবার চীনের যুদ্ধজাহাজ ও ড্রোন তাইওয়ানের এয়ার ডিফেন্স জোনে ঢুকে পড়েছিল বলে তাইপেই অভিযোগ করেছে। পশ্চিমা দেশের নিন্দা ইইউ-র পররাষ্ট্রমন্ত্রী জোসেপ বরেল চীনের এই সামরিক ড্রিলের নিন্দা করেছেন। তিনি বলেছেন, এই ড্রিলের কোনো যৌক্তিকতা নেই। জি৭-ও একই কথা বলেছে। তাদের মতে, এর ফলে ওই অঞ্চলে উত্তেজনা বাড়বে। জিএইচ/এসজি (এএফপি, রয়টার্স)