দমবন্ধ করা মাস্ক সম্পর্কে সচেতন করছে অ্যাপ

title
২ মাস আগে
২০২০ সালের শুরুতে করোনা মহামারির সূচনা পর্ব থেকেই ফেস মাস্ক জীবনযাত্রার অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হয়ে উঠেছে৷ ভাইরাস থেকে সুরক্ষা দিচ্ছে এই বস্তুটি৷ সেটির কার্যকারিতা নিয়ে সংশয় না থাকলেও অনেক ঘণ্টা ধরে এমন মাস্ক পরে থাকার অসুবিধা সম্পর্কেও সবাই একমত৷ যেমন সুপারমার্কেটের ক্যাশিয়ার মিগেল রামোন রডরিগেস নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে বলেন, ‘‘মহামারির শুরুতে বেশ কয়েক দিন আমার মাথায় ব্যথা হচ্ছিল, অতিরিক্ত ক্লান্ত হয়ে পড়ছিলাম৷ সারা দিন মাস্ক পরে থাকলে নিঃশ্বাস নিতে অসুবিধা হয়৷ ফলে বেশি ক্লান্তি আসে৷'' এফএফপি-২ মাস্ক ব্যবহার করলে মুখ ও মাস্কের মাঝের অংশে নিঃশ্বাসের মাধ্যমে বেরিয়ে আসা কার্বন-ডাই-অক্সাইডের ঘনত্ব অনেক বেশি থাকে৷ সেই গ্যাস আবার শরীরে প্রবেশ করলে মাথা ব্যথা বা ক্লান্তির মতো স্বাস্থ্যগত সমস্যা দেখা যায়৷ রেস্তোরাঁর পরিচারিকা এনকার্না উরিয়েনিয়া বলেন, ‘‘আমি অনেকক্ষণ মাস্ক পরে থাকলে ও বেশি মানুষের কারণে মানসিক চাপের মধ্যে থাকলে কখনো কখনো প্রচণ্ড ক্লান্ত হয়ে পড়ি৷ তখন নাক ও গলা পুরো শুকিয়ে যায়৷ কিচেনে গিয়ে একটু পানি খেয়ে নিজেকে চাঙ্গা করার চেষ্টা করি৷ বুক ভরে নিঃশ্বাস নিয়ে আবার কাজে ফিরে যাই৷'' মাস্ক ব্যবহারকারীদের এমন শারীরিক প্রভাব এড়াতে সহায়তা করতে গ্রানাদা বিশ্ববিদ্যালয়ের নয় জন ইঞ্জিনিয়ার ও রসায়নবিদ নিয়ে বিশেষজ্ঞের এক দল ‘ইন্টেলিজেন্ট মাস্ক' তৈরি করেছে৷ নির্ধারিত সিওটু-মাত্রা অতিক্রম করলেই সেই মাস্ক মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সতর্ক করে দেয়৷ যে মাস্কে দম বন্ধ হয়ে আসে না, যে মাস্ক ‘বুদ্ধিমান’ ইসিসেন্স প্রকল্পের সমন্বয়ক আলব্যার্তো জে পালমা জানান, ‘‘এই ইন্টেলিজেন্ট মাস্কের মধ্যে এক সেন্সর রয়েছে, যেটি মুখ ও মাস্কের মাঝের অংশের বাতাস পরীক্ষা করতে পারে৷ সেই সিওটু সেন্সরের মধ্যে প্রয়োজনীয় ইলেকট্রনিক উপাদান ভরা রয়েছে, যা সেন্সরে রংয়ের পরিবর্তন ঘটলেই স্মার্টফোনে সংকেত পাঠিয়ে দেয়৷'' সাধারণ এফএফপি-টু মাস্ককে ইন্টেলিজেন্ট মাস্কে রূপান্তরিত করতে হলে মাস্কের মধ্যে বিশেষ ইলেকট্রনিক স্টিকার বসাতে হয়৷ গবেষক পাবলো এস্কোবেদো বিষয়টি বিস্তারিতভাবে বুঝিয়ে বলেন, ‘‘মাস্কের মধ্যে বসানো স্টিকার এমন এক প্রণালী, যার দুটি অংশ রয়েছে৷ একদিকে তথাকথিত ‘রিডআউট ইলেকট্রনিক্স' রয়েছে, যেটি পরিবাহী কালির মাধ্যমে নমনীয় ও স্বচ্ছ প্লাস্টিকের মাধ্যমের উপর প্রিন্ট করে৷ যেমনটা এখানে দেখতে পাচ্ছেন৷ অন্যদিকে সেন্সরের রাসায়নিক অংশ রয়েছে, যেটি সিওটুর ঘনত্ব অনুযায়ী নিজস্ব রং বদলায়৷'' প্রস্তাবিত সিওটুর মাত্রা পেরিয়ে গেলে মাস্ক-ব্যবহারকারীকে সতর্ক করতে গবেষক দল এক বিশেষ মোবাইল অ্যাপ তৈরি করেছেন৷ এস্কোবেদো বলেন, ‘‘ব্যবহারকারীর কাছে এমন এক মোবাইল অ্যাপ থাকে, যা দিয়ে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের ঘনত্ব জানা যায়৷ মোবাইল পেমেন্টের জন্য যে এনএফসি প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়, সেটির সাহায্যেই মাস্কের কাছে থাকা স্মার্টফোন সজাগ হয়ে ওঠে৷ স্মার্টফোন তখন স্টিকার চিনতে পারে এবং সিওটু-র ঘনত্ব পড়ে নেয়৷ সেই অ্যাপ লাল বা সবুজ রংয়ের মাধ্যমে ব্যবহারকারীকে জানিয়ে দেয়, কখন তাজা বাতাস নেওয়া উচিত৷'' অনেক দেশেই মাস্ক পরা আর বাধ্যতামূলক না হলেও গবেষকরা নিশ্চিত যে, ইন্টেলিজেন্ট মাস্কের প্রয়োজন মোটেই ফুরিয়ে যায়নি৷ কারণ অনেক মানুষকে এখনো কর্মস্থলে মাস্ক পরতে হচ্ছে৷ সে কারণে এই টিম তাদের প্রযুক্তি যে কোনো ক্ষেত্রের জন্য উপযুক্ত করে তুলতে প্রস্তুত৷ রেই/মাসা/এসবি