বিশ্বের সব বাংলাভাষীর জ্ঞান বিনিময়ের প্লাটফর্ম হবে কোরা বাংলা

title
৬ মাস আগে
মঞ্জরী গাঙ্গুলী বিশ্বের বাংলাভাষীদের কাছে প্রশ্নোত্তরের জন্য সুপরিচিত ‘কোরা বাংলা। প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান- ভবিষ্যৎ নিয়ে বলেছেন এর কমিউনিটি ম্যানেজার মঞ্জরী গাঙ্গুলী। সাক্ষাতকার নিয়েছেন টেকশহরের বিশেষ প্রতিনিধি নুরুন্নবী চৌধুরী। ইন্টারনেটে প্রশ্নোত্তরের জন্য বেশ জনপ্রিয় সাইট কোরা। ইংরেজি ভাষার কোরায় অনেক দেশের প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে বিভিন্ন খাতের শীর্ষ ব্যক্তি, তারকাসহ অনেকেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। বিভিন্ন ভাষার থাকা কোরায় বাংলা শুরু হয় ২০১৯ সালের ১৬ জানুয়ারি। ইতোমধ্যে কোরা বাংলাও (https://bn.quora.com) বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বাংলাভাষীদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। কোরা বাংলায় কমিউনিটি ম্যানেজার হিসেবে সম্প্রতি যোগ দেন মঞ্জরী গাঙ্গুলী। টেক শহর : নতুন কমিউনিটি ম্যানেজার হিসেবে আপনি কী উদ্যোগ নিচ্ছেন ? মঞ্জরী গাঙ্গুলী:কোরা বাংলার কমিউনিটি ম্যানেজার হিসেবে আমি সবসময় ব্যবহারকারীদের পাশে থাকার চেষ্টা করবো। কোরা বাংলার প্রত্যেক ব্যবহারকারীকে বিভিন্নভাবে সহায়তা করতে আমি ও কোরা দল একাধিক পরিকল্পনা করছি। সম্প্রতি আমরা একটি আড্ডা, গল্প ও আলাপচারিতার আসর আয়োজন করেছিলাম, যেখানে ব্যবহারকারীরা একজোট হয়ে একে অপরের সঙ্গে আলাপ করতে ও একে অপরের থেকে নতুন কিছু শিখতে পেরেছেন। ভবিষ্যৎতে এরকম আরও আয়োজন করার ইচ্ছে আছে। আমাদের সবসময় লক্ষ্য থাকবে এমন কিছু পদক্ষেপ নেওয়া যার মাধ্যমে কোরা বাংলার লেখক সম্প্রদায়কে আরও বেশি করে স্বীকৃতি দেয়া যায়। কোরা বাংলার দুর্দান্ত অবদানকারীদের আমরা নিয়মিত স্বীকৃতি দেয়ার চেষ্টা করছি। টেক শহর : কোরা বাংলা চালুর বয়স তিন বছরের পথে। পাশাপাশি বাংলা ভাষাভাষী অনেকেই যুক্ত আছেন কোরা বাংলায়। এর মধ্যে বাংলাদেশের ব্যবহারকারীদের সক্রিয়তা কেমন দেখছেন? মঞ্জরী গাঙ্গুলী:বিশ্বজুড়ে কোরায় প্রতি মাসে ৩০০ মিলিয়ন ইউনিক ভিজিটর আসেন। কোরা বাংলাতে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বাঙালিরা ব্যবহারকারী হিসেবে যুক্ত হচ্ছেন। সে হিসেবে কোরা বাংলার ব্যবহারকারী শুরুর দিকের চেয়ে এখন নিয়মিত ভাবে বেড়েই চলেছে। একটা কথা একটু এখানে বলা দরকার। কোরা বাংলায় কোনো ব্যবহারকারীকেই ঠিক নির্দিষ্ট কোন দেশের ব্যবহারকারী হিসেবে আলাদা করা বা ভাবা হয় না। এখানে সব ব্যবহারকারীরাই একটি পরিবারের সদস্য। এপার বাংলা, ওপার বাংলা এবং পৃথিবীর অন্যান্য প্রান্তের বাংলা ভাষাভাষীরা সকলেই ক্রমাগত, নানা বিষয়ে, কোরা বাংলাতে জ্ঞান আদান প্রদান করে চলেছেন। গত কয়েক বছর ধরে কোরা বাংলাকে মানুষ যে অপরিসীম সমর্থন ও ভালোবাসা দিয়ে এসেছেন ও যেভাবে পাশে থেকেছেন, তার জন্য যতই ধন্যবাদ দিই না কেন, কম পড়ে যায়। টেক শহর : কোরা বাংলাকে আরও জনপ্রিয় করে তুলতে কি ধরনের উদ্যোগ প্রয়োজন বলে মনে করেন? মঞ্জরী গাঙ্গুলী: কোরা বাংলা একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় মাধ্যম, যেখানে বাংলা ভাষায় যে কোনো বিষয়ে জ্ঞান আদানপ্রদান করা যায়। আর প্রয়োজনীয় বলেই এটি মানুষের কাছে অচিরে জনপ্রিয়তাও লাভ করছে। কোরা’র লক্ষ্য হলো বিশ্বের জ্ঞানভাণ্ডার ভাগ করে নেওয়া ও বিশ্বের জ্ঞানের ভান্ডারকে বৃদ্ধি করা। আমাদের বিশ্বাস, কোরা বাংলাও ক্রমশ আরও বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে যাবে। কোরা বাংলা সম্প্রদায়ের দরকারগুলো বুঝতে আমরা সবসময় সম্প্রদায়ের সদস্যদের সাথে সংযোগে থাকি এবং তাদের অনুপ্রেরণা দিতে বিভিন্ন ক্যাম্পেইনও পরিচালনা করি। টেক শহর : বাংলাদেশে কোরা বাংলার ব্যবহারকারী বা সক্রিয়তা বাড়াতে কোনো উদ্যোগের ভাবছেন ? মঞ্জরী গাঙ্গুলী:অবশ্যই। শুধু বাংলাদেশ নয়, পৃথিবীর যেখানে যেখানে জ্ঞানপিপাসু বাংলাভাষীরা আছেন, তাঁদের সকলের কাছে পৌঁছে যেতে চায় কোরা বাংলা। সেই লক্ষ্যসাধনের জন্য আমরা বিভিন্নরকম চিন্তাভাবনা করছি। আশা করা যায় শিগগির তা এক এক করে সকলের সামনে তুলে ধরতে পারবো। টেক শহর : কোরা ইংরেজিতে অনেক বিখ্যাত মানুষজন যুক্ত আছেন যারা নানা সময়ে প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশ নেন। কোরা বাংলায় এমন প্রখ্যাত মানুষদের যুক্ত করার কোন উদ্যোগ কি আছে? মঞ্জরী গাঙ্গুলী:হ্যাঁ। আজ থেকে নয়, কোরা বাংলাতে আগেও বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশেষজ্ঞরা প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশ নিয়েছেন। মাঝখানে কিছুটা সময় বিরতি ছিল বটে, কিন্তু নতুন রূপে বিশেষজ্ঞ-সেশন আবার ফিরে এসেছে। সম্প্রতি বিশেষজ্ঞ সেশন নিয়েছেন লেখক, ইউটিউবার ও কণ্ঠশিল্পী রণদীপ নন্দী। ভবিষ্যতে এমন বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা যাতে সেশন গ্রহণ করেন, সেইরকমই আশা ও চেষ্টা করবো। টেক শহর : কোরা বাংলায় নিয়মিত কী ধরনের আয়োজন হয়? মঞ্জরী গাঙ্গুলী:কোরা বাংলাতে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বাংলা ভাষাভাষীরা বিভিন্ন বিষয়ে বাংলা ভাষায় প্রশ্ন করেন, উত্তর দেন ও দারুণ দারুণ মঞ্চ পরিচালনা করেন। সাহিত্য থেকে প্রকৌশল, রাজনীতি থেকে পদার্থবিদ্যা, আলোকচিত্র থেকে ব্যবসা কী নেই তাতে! কোরা বাংলার দুর্দান্ত লেখক লেখিকাদের সম্মান জানাতে আমরা প্রতি মাসে ‘শীর্ষ লেখক’ ও ‘শীর্ষ প্রশ্নকর্তা’ নির্বাচন করি এবং প্রতি সপ্তাহে ‘শীর্ষ মঞ্চ’ নির্বাচন করি। শুধু তাই নয়, কোরা বাংলার লেখিকা ও লেখকদের দুর্দান্ত ও তথ্যবহুল লেখাগুলো আমরা আমাদের অফিসিয়াল সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মগুলিতে শেয়ার করে থাকি। যেমনটা আগে বললাম, কোরা বাংলায় বিশেষজ্ঞ সেশন আবার চালু হয়েছে। এছাড়া কোরা বাংলার সম্মেলন আয়োজনও আমরা আবার শুরু করেছি। আরও অনেক কিছু পরিকল্পনা আছে, সময়ের সাথে সাথে নিশ্চয়ই তা আলোচনা করতে পারবো। টেক শহর : অফলাইনে কোরা বাংলাকে জনপ্রিয় করে তোলার ক্ষেত্রে কোনো আয়োজন রাখছেন ? মঞ্জরী গাঙ্গুলী:বর্তমান যুগে সোশ্যাল মিডিয়াকে সরিয়ে রেখে এগিয়ে চলা সম্ভব নয় এবং কোরা বাংলাও তার ব্যতিক্রম নয়। আমরা ফেসবুক ও টুইটারের পাশাপাশি লিংকড ইনে এখন সমানভাবে সক্রিয় আছি। কোরা বাংলাকে আরও বেশি মানুষের কাছে পৌঁছনোর জন্য আমরা সবাই বিভিন্নরকম পরিকল্পনা করছি। আমাদের বিশ্বাস, কোরা বাংলা নিশ্চয়ই একটা সময় সকল বাংলা ভাষাভাষীর কাছে জ্ঞান আহরণ ও জ্ঞানের প্রসারের একটি মাধ্যম হতে পারবে। টেক শহর : বাংলা ভাষার এ উদ্যোগকে সামনে এগিয়ে নিতে আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি? মঞ্জরী গাঙ্গুলী:যেমনটা আগে বললাম, পরিকল্পনা আছে অনেক। একটা একটা করে পা ফেলে, আমরা কিন্তু সেই শুরুর সময়ের লক্ষ্য অর্জনেই এগিয়ে চলেছি। আমাদের প্রতিটা পদক্ষেপ এইটা লক্ষ্য রেখেই হবে, যাতে সারা বিশ্বের জ্ঞানের ভান্ডার কোনো নির্দিষ্ট সামাজিক বা অর্থনৈতিক ক্ষেত্রের মানুষ অথবা নির্দিষ্ট ভাষাতে সীমাবদ্ধ না থাকে। বাংলা ভাষাতে সেই জ্ঞানের সমুদ্র ছড়িয়ে পড়বে সকলের কাছে, কোরা বাংলার মাধ্যমে। আর কোরা বাংলার কমিউনিটি ম্যানেজার হিসেবে সবসময় আমি তো পাশে থাকবোই। অনুরোধ করবো, আপনারাও আমাদের পাশে থাকবেন, ভালোবাসা দেবেন ও আপনার পছন্দের বিষয়ে কোরা বাংলায় লেখালেখি করে আরও অনেক মানুষকে সেই বিষয় নিয়ে জানার ও শেখার সুযোগ করে দেবেন। টেক শহর : আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলেন? মঞ্জরী গাঙ্গুলী:টেকশহর ডটকমকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। এমন অভিনব সুযোগের জন্য আমি অত্যন্ত আনন্দিত ও কোরা কর্তৃপক্ষের কাছে কৃতজ্ঞ আমাকে এমন কাজে সুযোগ দেয়ার জন্য। ব্যক্তিগত জীবনে আমি একেবারেই ‘মাছে-ভাতে বাঙালী’। ভারতের কলকাতায় আমার জন্ম, বড় হওয়া ও পড়াশোনা। পরে চাকরির জন্য কিছু বছর থেকেছি বেঙ্গালুরু ও গুরগাঁও। লিখতে, পড়তে, চলচ্চিত্র দেখতে ও গান শুনতে আমার খুব ভালো লাগে। অভিনয় শিখতে ও করতে আমি অত্যন্ত উৎসাহী; নাট্যাভিনয় ও নাট্যচর্চা নিয়ে আমার বিশেষ আগ্রহ আছে।