নওগাঁয় ট্রাকচাপায় প্রাণ গেল অটোরিকশার ৫ আরোহীর

title
২০ ঘন্টা আগে
নিহতদের মধ্যে চারজনই নিয়ামতপুরের কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষিকা বলে স্বজনদের বরাতে জানিয়েছে পুলিশ। নওগাঁ সদর থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল জানান, শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে নওগাঁ-রাজশাহী আঞ্চলিক মহাসড়কের বাবলাতলী মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার বাত মেহেদা গ্রামের দেলোয়ার হোসেন (৪৫), বিজলী গ্রামের মকবুল হোসেন (৫৭), ভাতরন্ড গ্রামের জান্নাতুন ফেরদৌস (৩৫), ডাঙাপাড়া গ্রামের অটোরিকশা চালক সেলিম উদ্দিন (৪৫)। নিহত আরেকজন গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ সদরের বাসিন্দা লেনিন সরকার (২৮)।আহত নুরজাহান (৩০) নিয়ামতপুরের করিদহ উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান শিক্ষিকা। তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।নিহতদের মধ্যে দেলোয়ার হোসেন নিয়ামতপুরের পানিহারা উচ্চ বিদ্যালয়ের গণিত শিক্ষক, মকবুল হোসেন বেলকাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের গণিত শিক্ষক, জান্নাতুন ফেরদৌস গুজিশহর উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান শিক্ষক এবং লেনিন সরকার নিয়ামতপুরের আমকুড়া আশরাফুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার বাংলা শিক্ষক।হতাহত সবাই অটোরিকশার যাত্রী ছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি। ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল বলেন, “অটোরিকশাটি নিয়ামতপুর থেকে নওগাঁ সদরে আসছিল। আর গোখাদ্যবাহী ট্রাকটি যাচ্ছিল রাজশাহীর দিকে। মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে দুটো বাহনই রাস্তার পাশের খাদের পড়ে যায়।”খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ দুই ঘণ্টার চেষ্টায় এক নারীসহ পাঁচজনের মরদেহ উদ্ধার করে।আহত এক শিক্ষিকাকে প্রথমে নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়; পরে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় বলে জানান ওসি।নওগাঁ ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মাহবুব হাসান প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে জানান, বাবলাতলীর মোড়ে একটি ট্রাক্টরকে সাইড দিতে গিয়ে নিয়ামতপুর থেকে নওগাঁগামী সিএনজিচালিত অটোরিকশার সঙ্গে রাজশাহীগামী একটি খাদ্য বোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট তিন ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে হতাহতদের উদ্ধার করে।