মেসি-এমবাপের নৈপুণ্যে পিএসজির বড় জয়

title
১০ দিন আগে
আগেই লিগ ওয়ানের শিরোপা জেতা মাওরিসিও পচেত্তিনোর দল শনিবার রাতে প্রতিপক্ষের মাঠে ম্যাচটি জিতেছে ৪-০ গোলে। অন্য গোলটি করেন আনহেল দি মারিয়া।লিগে টানা তিন ড্রয়ের পর জয়ের স্বাদ পেল প্যারিসের দলটি। ম্যাচ বাকি আর একটি। নিষেধাজ্ঞায় দলে ছিলেন না আক্রমণভাগের আরেক তারকা নেইমার। পঞ্চম মিনিটে এগিয়ে যেতে পারত পিএসজি। মেসির শট ঠেকিয়ে দেন মোঁপেলিয়ের গোলরক্ষক। পরের মিনিটে সাতবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী তারকাকে আর আটকে রাখতে পারেননি তিনি। এমবাপেকে ডি-বক্সে পাস দিয়ে ভেতরে ঢুকে পড়েন মেসি। ফিরতি পাসে বল পেয়ে বাঁ পায়ের শটে পাঠান জালে। ২০তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ান মেসি। বাঁ দিক থেকে এমবাপের বাড়ানো বল ডি-বক্সে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে গোলরক্ষককে কাটিয়ে ফাঁকা জালে পাঠান সাবেক বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড।লিগ ওয়ানে ২৫ ম্যাচে মেসির গোল হলো ৬টি। প্রথমবার এক ম্যাচে করলেন দুটি। পাঁচ মিনিট পরই স্কোরলাইন ৩-০ করে ফেলেন আরেক আর্জেন্টাইন তারকা দি মারিয়া। ডি-বক্সে এমবাপের ক্রস হেডে ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হন মোঁপেলিয়ের এক ডিফেন্ডার। ভলিতে ঠিকানা খুঁজে নেন সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ মিডফিল্ডার।৩৪তম মিনিটে গোল পেতে পারতেন এমবাপে। ফরাসি ফরোয়ার্ডের শট লাগে ক্রসবারে। ৬০তম মিনিটে ফুরোয় তার অপেক্ষা। পেনাল্টি থেকে গোলটি করেন বিশ্বকাপ জয়ী তারকা। ডি-বক্সে তিনি নিজেই ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি।একটু পর ভাগ্যের ফেরে গোল পাননি মোঁপেলিয়ের মোলেত। ফরাসি এই মিডফিল্ডারের শট পোস্টে লাগে। পরের মিনিটে দি মারিয়া আবার জালে বল পাঠালেও অফসাইডের পতাকা তোলেন লাইন্সম্যান। বাকি সময়ে ব্যবধান কমানোর আরও কিছু সুযোগ পেলেও কাজে লাগাতে পারেনি স্বাগতিকরা।৩৭ ম্যাচে ২৫ জয় ও ৮ ড্রয়ে পিএসজির পয়েন্ট হলো ৮৩।সমান ম্যাচে ৬৮ পয়েন্ট করে নিয়ে মোনাকো দুইয়ে ও মার্সেই তিনে আছে। ৬৫ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে আছে রেন।