সীতাকুণ্ড ট্রাজেডির পর চট্টগ্রাম বন্দরে কেমিক্যাল হ্যান্ডলিংয়ে কড়াকড়ি

title
২ মাস আগে
সীতাকুণ্ডে বিএম ডিপো ট্রাজেডির পর কেমিক্যাল হ্যান্ডলিংয়ে কড়াকড়ি করেছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। এতে হয়রানীর ভয়ে ট্রান্সশিপমেন্ট বন্দর থেকে ডিজি কার্গো পরিবহন বন্ধ করে দিয়েছে বড় বড় শিপিং কোম্পানী। তাই কাঁচামালের উপকরণ সংকটে পড়তে যাচ্ছে দেশের শিল্প-কারখানা। সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে দ্রুত সংকট সমাধানে উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানিয়েছেন ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তারা। আর বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, নতুন কোন শর্ত আরোপ করা হয়নি। ৪ জুন রাতে সীতাকুণ্ডের বিএম কন্টেইনার ডিপোতে হাইড্রোজেন পার অক্সাইডবাহী কন্টেইনারে বিস্ফোরনের পর আগুন ছড়িয়ে পড়ে পুরো ডিপোতে। টানা চার দিন ধরে জ্বলতে থাকা এই অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়। এরপর থেকেই ডিজি কার্গো বা বিপদজনক পণ্য হ্যান্ডলিংয়ের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি শুরু করে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। তাই বড় বড় শিপিং কোম্পানী রাসায়নিক ও কেমিক্যাল পরিবহন বন্ধ করে দিয়েছে। এতে কাঁচামাল সংকটে পরায় উদ্বেগ জানিয়ে বন্দর কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছে বিভিন্ন কোম্পানী। শিপিং কোম্পানী বলছে, রাসায়নিক ও কেমিক্যল বহনকারী কন্টেইনার হ্যান্ডলিংয়ের জন্য আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত কিছু জটিল ও কঠিন নিয়মকানুন রয়েছে। যা পুরোপুরি মেনে চলার মতো পরিবেশ চট্টগ্রাম বন্দরে তৈরী হয়নি। হয়রানী এড়াতে এমন পণ্য বহণ করতে চাচ্ছেন না তারা। বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, নতুন কোন শর্ত আরোপ করেননি তারা। তবে বন্দরকে ঝুঁকিমুক্ত রাখতে সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করেই ডিজি কার্গো হ্যান্ডলিংয়ের রূপরেখা নির্ধারণ করা হয়েছে। দেশের গার্মেন্টস, টেক্সটাইল, ওষুধখাতসহ কৃষি ও শিল্পের প্রায় প্রতিটি খাতেই কেমিক্যালের ব্যবহার হয়। যার সিংহভাগই আমদানী করা হয়। বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানী করা এসব কেমিক্যালের চালান সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও কলম্বো বন্দর হয়ে চট্টগ্রামে পৌঁছে।