বন্যায় কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলে তীব্র হয়ে উঠেছে গবাদি পশুর খাদ্য সংকট

title
২ মাস আগে
চলতি বন্যায় কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলের চারণভূমি তলিয়ে থাকায় ও টানা বৃষ্টিতে সঞ্চিত গো-খাদ্য নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তীব্র হয়ে উঠেছে গবাদি পশুর খাদ্য সংকট। এ অবস্থায় বাড়িতে পোষা গরু, মহিষসহ অন্যান্য গবাদি পশু নিয়ে চরম বিপাকে বন্যা কবলিত এলাকার কৃষক। সরকারিভাবে এবারের বন্যায় কুড়িগ্রাম জেলার ৯ উপজেলার ৪৯টি ইউনিয়নের ৩৮ হাজার ৯৭ পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কথা বলা হলেও, এ সংখ্যা আরো বেশি। টানা দুই সপ্তাহ ধরে চলা বন্যার কিছুটা উন্নতি হলেও এখনও তলিয়ে আছে চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের চারন ভূমি ও বসতভিটা। দ্রুত পানি নেমে না যাওয়ায়, নিজেদের খাদ্য সংকটের পাশাপাশি গো-খাদ্যের সংকট নিয়ে চরম দুর্ভোগে এসব এলাকার কৃষক পরিবার। তলিয়ে আছে চারন ভূমি। আর অতিবৃষ্টি ও বন্যার নষ্ট হয়েছে খড়। এ অবস্থায় নিজেদের খাবার জোটানোর পাশাপাশি গো-খাদ্যের জোগান দেয়া কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। সরকারিভাবে গো-খাদ্য বরাদ্দ দেয়া হলেও তা এখনও কৃষকের কাছে পৌছায়নি। জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা জানান, চলতি বন্যায় জেলার ৮শ ৮৭ হেক্টর চারন ভূমি তলিয়ে গেছে। নষ্ট হয়ে গেছে শতাধিক টন গো-খাদ্য। কৃষকদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ৯ উপজেলায় ১৮ লাখ টাকার গো-খাদ্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। প্রতি বছর কোরবানির ঈদে গবাদি পশু বিক্রির জন্য লালন-পালন করে থাকেন চরাঞ্চলের কৃষক। কিন্তু এবার ঈদ আসার আগেই এ বন্যা ক্ষতির কারন হয়ে দাড়িয়ে তাদের সামনে। এ অবস্থায়্ চরাঞ্চলের মানুষের আয়ের প্রধান উৎস গবাদি পশু রক্ষায় সরকারি সহযোগীতা কামনা করেছেন তারা।