কপিরাইট ইস্যুতে সরব স্বনামধন্য সঙ্গীত পরিচালক শেখ সাদি খান

title
৮ দিন আগে
স্বনামধন্য সঙ্গীত পরিচালক ও সুরকার শেখ সাদি খান। স্বনামধন্য সঙ্গীত পরিচালক ও সুরকার শেখ সাদি খান সুরের জাদুতে বাংলা সঙ্গীতপ্রেমিদের তিনি আবিষ্ট করে রেখেছেন কয়েক দশক ধরে। সম্প্রতি তিনি তার এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে অভিযোগ তুলেছেন তার অনুমতি না নিয়ে ‘আমার মনের আকাশে আজ’ গানের কাভার প্রসঙ্গে, দিয়েছেন উকিল নোটিশও। তবে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের দাবি, সিনেমার প্রযোজকের অনুমতি নিয়েই নতুন করে প্রকাশিত হয়েছে গানটি। সময় কাল ৯০ দশক। ইলিয়াস কাঞ্চন ও দিতি অভিনীত সিনেমা ‘প্রেমের প্রতিদান’ মুক্তি পায় তখন। নজরুল ইসলামের বাবুর লেখা শেখ সাদি খানের সঙ্গীত পরিচালনায় কুমার সানুর গাওয়া আমার মনের আকাশে গানটি বাংলা সিনেমার সংগীতপ্রেমীদের হৃদয় ছুঁয়ে যায়। প্রশ্ন এ গানের জনপ্রিয়তা নিয়ে নয়। প্রশ্ন, এতো বছর পর সে গান আবারও নতুন করে অনুপম রেকর্ডিং এর ব্যানারে প্রকাশিত হওয়ায়। ২০২০ সালে এ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সঙ্গীত শিল্পী ইমরানের কণ্ঠে গানটির ভিডিও প্রকাশ করায়। যেখানে অভিনয়ও করেন ইমরান। সম্প্রতি এ গানের সঙ্গীত পরিচালক শেখ সাদি খান তার এক ফেসবুক স্ট্যাটাস তার গান এভাবে প্রকাশ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন! জানান এটা আইনত দণ্ডনীয়। তার ভাষ্যমতে আইন অমান্য করেছে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। তাই তিনি উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন। যদিও এর কোনো আনুষ্ঠানিক জবাব দেয়নি অনুপম রেকর্ডিং। পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে খ্যাতনামা সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক শেখ সাদী খান বলেন, তুমি অপরাধ করেছো। সেই অপরাধের খেসারত তোমাকে অবশ্যই দিতে হবে। তুমি কীভাবে সে খেসারত দিবা সেটা তুমিই বুঝবা। আমি উকিল নোটিশ পাঠিয়েছি, এখন যদি সে রিপ্লাই না দেয় বা আমার সাথে কোনো সমাধানে না আসে তাহলে আমি কেস ফাইল করবো। তবে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের দাবি কপি রাইট আইন মেনেই প্রকাশিত হয়েছে গানটি। একই কথা বললেন বাংলাদেশ কপি রাইট অফিসের রেজিস্ট্রারও। তাহলে এ গানের প্রশ্নে কিভাবে হবে সমাধান? এক একটা গান সঙ্গীত পরিচালকের সন্তানের মতই। এ প্রসঙ্গে শেখ সাদী খান বলেন, আলাপ-আলোচনা করার দরকার ছিল যে আমরা গানটা অন্য আর্টিস্ট দিয়ে গাওয়াতে চাই, আমাকে বলতো। সেক্ষেত্রে আমি থাকতাম সাজেশন দিতাম। তাহলে তো আর এই কথাগুলো উঠতো না আজকে। তাহলে নতুন করে কারো গান গাইতে গেলে সঙ্গীত স্রষ্টার অনুমতি বা পরামর্শ নেয়াটা কি যুক্তিসঙ্গত নয়? কপিরাইট আইনে কি হতে পারে সংশোধন? শিল্পকর্মে সৃষ্টির আনন্দ যোগ করতে ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি সুর-সঙ্গীত স্রষ্টারা পেতে পারেন কি তাদের প্রাপ্য? এ প্রশ্ন রয়েই যাচ্ছে। /এসএইচ