সঙ্কটের উন্নতি না হওয়া আসিয়ানে নিষিদ্ধ মিয়ানমারের জেনারেলরা

title
১২ দিন আগে
আসিয়ানেরৈ বৈঠক। ছবি: সংগৃহীত। অ্যাসোসিয়েশন অফ সাউথইস্ট এশিয়ান নেশনসের (আসিয়ান) বৈঠকে মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন জান্তা বাহিনীর জেনারেলদের নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সংস্থাটির পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। মূলত, সামরিক অভ্যুত্থানের পর দেশটিতে সৃষ্ট সঙ্কট মোকাবেলায় উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি না থাকায় তাদের বিরুদ্ধে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। সঙ্কট নিরসন না হওয়া পর্যন্ত মিয়ানমারের জেনারেলদের বিরুদ্ধে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর থাকার বিষয়েও সম্মত হয়েছে ১০টি দেশের সমন্বয়ে গঠিত এই সংগঠন। খবর আল জাজিরার। শুক্রবার (৫ আগস্ট) কম্বোডিয়ার নমপেনে আসিয়ানের আঞ্চলিক পর্যায়ের ধারাবাহিক বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে কম্বোডিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও মিয়ানমারে কর্মরত বিশেষ দূত প্র্যাক সখোন বলেন, মিয়ানমারে সৃষ্ট সঙ্কট সমাধানে আগে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি দেখাতে হবে দেশটির ক্ষমতাসীনদের। এরপর তাদের সাথে কাজ করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের ফলে সৃষ্ট সংকট মোকাবিলায় আসিয়ানের পক্ষ থেকে পাঁচটি দফা ছিল। কিন্তু সেই পাঁচ দফার অগ্রগতি খুব বেশি না হওয়ায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে এ কঠোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে আসিয়ান। আগামী নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় আঞ্চলিক সম্মেলনের আগে স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন কাউন্সিলকে (এসএসি) এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। এর আগে, মিয়ানমারকে বাদ রেখেই গত ৪ আগস্ট কম্বোডিয়ার রাজধানী নমপেনে শুরু হয় আসিয়ানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলন। এই সম্মেলন থেকে মিয়ানমারের সামরিক জান্তাকে সাবধান করা হয়। বলা হয়েছে, যদি মিয়ানমারের জেনারেলরা আর কোনো রাজনৈতিক বন্দিকে মৃত্যুদণ্ড দেয়, তাহলে সহিংসতা বন্ধে মিয়ানমারের সাথে যে পরিকল্পনা চুক্তি হয়েছিল তা পুনর্বিবেচনা করবে আসিয়ান। এতে কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী হুন সেন বলেছেন, মিয়ানমারের সঙ্কট থেকে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক যে প্রভাব এসেছে, তাতে আসিয়ানের ঐক্যের প্রতি চ্যালেঞ্জ জানানো হয়েছে। এর ফলে অর্থনৈতিক ও মানবিক সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। এসজেড/