পদ্মা সেতুতে বাইকারদের বিক্ষোভ, ফেরিতে পার হলো মোটরসাইকেল

title
এক মাস আগে
মোটরসাইকেল চালকরা দাবি জানালেও নির্দেশনা অনুযায়ী পদ্মা সেতুতে বাইক চলাচল বন্ধ রেখেছে সেতু কর্তৃপক্ষ। বাইকারদের বিক্ষোভের মুখে এবং ভোগান্তি বিবেচনায় শিমুলিয়া ও মাঝিরকান্দি ঘাট থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে ছেড়েছে ফেরি। সকালের দিকে কোনো কোনো বাইকার পিকআপে বাইক উঠিয়ে পদ্মা সেতু পাড়ি দেন। পরে পিকআপ থেকে বাইক নামিয়ে সেই উপায়ও বন্ধ করে দেয়া হয়। পদ্মা সেতু পাড়ি দিতে না পারায় ক্ষুব্ধ মোটরবাইক চালকেরা। সোমবার সকাল ৯টার দিকে মাওয়া প্রান্তের টোল প্লাজার সামনে শত শত বাইকার চেষ্টা করেন সেতুতে উঠার। কিন্তু কর্তৃপক্ষ অটল থাকায় পার হতে পারেনি কেউই। বাইকারদের দাবি সেতুতে পর্যবেক্ষণ বাড়িয়ে ও কড়াকড়ি আরোপ করে তাদের যাওয়ার সুযোগ দেয়া হোক। এক বাইকার জানান, আমার এখানে নাট বল্টু খুলতে আসিনি। সবারই কাজ আছে। আরেক বাইকার বলেন, যারা ছবি তুলবে এদের দশ হাজার টাকা জরিমানা করুক। গণপরিবহন বন্ধ করা কোনো সমাধান না। কালকে যদি বাস এক্সিডেন্ট করে তাহলে কি বাস বন্ধ করবে? এ সময় কেউ কেউ বেছে নেন বিকল্প পথ। পিকআপে বাইক তুলে পাড়ি দেন সেতু। এক সময় আরও কঠোর হয় কর্তৃপক্ষ। পিকআপ থেকে মোটরসাইকেল নামিয়ে দেয় পুলিশ। দুপুরে সড়ক অবরোধ করে বাইক চালকেরা। তবে সেনা বাহিনীর উপস্থিতিতে সরে যেতে বাধ্য হয় তারা। পুলিশ জানায়, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হুকুম কোনো মোটরসাইকেল এই ব্রিজ পার হবে না। পরে ভোগান্তি বিবেচনায় শিমুলিয়া ঘাট থেকে বাইক নিয়ে সকাল সাড়ে দশটার দিকে ছেড়ে যায় ফেরি কুঞ্জলতা। মাঝিরকান্দি ঘাট থেকেও মোটরসাইকেল নিয়ে রওনা হয় আরেকটি ফেরি। ইউএইচ/