কলাপাড়ায় বয়োবৃদ্ধ এক যোদ্ধা গনি মিয়া জীবন যুদ্ধে হার না মেনে এগিয়ে চলা

title
১০ দিন আগে
মিজানুর রহমান বুলেট: চোখের অস্পষ্টতা আর দুর্বল দেহ নিয়ে কাঠ পোড়ানো রোদ্দুর কিংবা বৈরি আবহাওয়ায় ছুটে চলা। কারো সাহায্য নয়, ক্ষুধা নিবারনের রসদ যোগাতেই ঘর্মাক্ত শরীরের এই অদম্য চেষ্টা । ঘরে ষাটোর্ধ অসুস্থ জীবন সঙ্গীনি ঠিকমত নড়াচড়া করতে পারেন না ।কঠোর পরিশ্রমের ফাঁকে নিজ হাতে রেধে মুখে তুলে খাওয়াতে হয় তাকে। ভাড়ায় চালিত রিকশায় যাত্রিদের গন্তব্যে পৌছেঁ দিয়ে বয়সের ভাড়ে নুয়ে পড়া শরিরটা যখন ক্লান্ত। তখন ঘরে ফিরে বিশ্রাম নেয়ার সৌভাগ্যটাও বদলে যায় রান্না চাপানো উনুনের আগুনের তাপে। আর বৃদ্ধ বয়সে বাবা মায়ের সংসার জীবনে পাশে দাড়াঁতো যে ছেলেটা সেও পৃথিবী ছেড়েছে প্রায় ১৫ বছর। তবুও সঙ্গীনিকে পাশে রেখে ক্ষয়িষ্ণু জীবনের চেনা ঘানি টেনে যাচ্ছেন জীবদ্দশায় হার না মানা যোদ্ধা বয়োবৃদ্ধ গনি মিয়া।কলাপাড়া পৌর শহরের ৯ নং ওয়ার্ডের মৃত জাহাঙ্গীর খানের ছেলে সত্তরোর্ধ্ব গনি মিয়া। পরিবারে তেমন আর্থিক স্বচ্ছলতা না থাকলেও স্ত্রী এবং ছেলে বাইজিৎকে নিয়ে ছিল ছোট্র সুখের সংসার। কিন্তু প্রায় ১৫ বছর আগে আকস্মিক মৃত্যু হয় একমাত্র পুত্র সন্তানের। এর পরেই মানসিকভাবে বিধ্বস্ত হয়ে পরেন তার স্ত্রী মালেকা বানু। গত পাচ বছর যাবৎ প্রায় অচলাবস্থায় রয়েছেন তিনি। বার্ধক্যের কারনে নিজ শরীরে নানান রোগের আনাগোনা থাকলেও স্ত্রীর চিকিৎসা আর জীবীকার তাগিদে এখন ভাড়াটে রিকশার ড্রাইভার তিনি। প্রতিদিন দেড়শো টাকায় একটি অটো রিকশা ভাড়া নিয়ে দিনভর যাত্রিদের গন্তব্যে পৌঁছে দেন। আর এই কাজের আয় থেকে রিকশা মালিকের ভাড়া বাদে প্রতিদিনের আয় থাকে তিন থেকে চারশো টাকা। যা দিয়েই চলে অসুস্থ স্ত্রীর চিকিৎসাসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সংসারের কেনাকাটা। গনি মিয়ার ভাষ্যমতে, সারাদিন রিকশা চালিয়ে ঘরে ফিরে নিজ হাতে রান্না করে মুখে তুলে খাওয়াতে হয় তার ভালবাসার মানুষটিকে। কোন কোন দিন রান্না করতে না পারলে সেদিন পান্তা খেয়েই থাকেন দুজন। কিন্তু সঙ্গিনিকে রেখে বাহিরে কিছু খান না তিনি। আর বিকল্প কোন আয়ের পথ না থাকায় এভাবেই চলছে তাদের জীবন সংসার। যেখানে অর্থ প্রাচুর্য্য না থাকলেও স্ত্রীর প্রতি ভালবাসার কোন কমতি নেই তার। তবে সরকারীভাবে কোন ভাতা পাননা বলে অনেকটা ক্ষুব্ধ তিনি। এবিষয়ে কলাপাড়া উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা অলিউল ইসলাম জানান, ওনারা হয়তো ভাতার জন্য আবেদন করেননি। খোঁজ নিয়ে অবশ্যই তাদের ভাতা সুবিধা দেয়া হবে।